1. [email protected] : purbobangla :
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২২, ০৩:২৩ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বঙ্গবন্ধু টানেলের সুফলের বদলে সংকট যানজট বাড়ার শঙ্কা চট্টগ্রাম গ্রামীণ চক্ষু হাসপাতালের ‘চক্ষু শিবির’ মানুষের মাঝে ছড়াচ্ছে আশার আলো ২৯নং ওয়ার্ডে এ.বি.এম. মহিউদ্দীন চৌধুরী পরিবারের পক্ষ থেকে শীত বস্ত্র বিতরণ গাউসিয়া কমিটি দুবাই আল আবীর শাখার দোয়া মাহফিল সৈয়দ মঈনুদ্দিন হোসেন মেমোরিয়াল একাডেমি কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে ব্রাদার্স ক্রিকেট একাডেমি  ও ব্রাইট একাডেমি চ্যাম্পিয়ন গাজীপুর জেলা ক্রীড়া অফিসের আয়োজনে অটিজম ছেলে-মেয়েদের ক্রীড়া উৎসব অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামের প্রথম বেকিং ট্রেনিং সেন্টার ও শোরুমের যাত্রা শুরু  কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে ভূমিকম্পে কাঁপলো এশিয়ার ৬ দেশ শ্রমিকরা অর্থনীতির আয়না : শাজাহান খান নবাবগঞ্জে করোনার ভ্যাকসিন দিতে গিয়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু

বোয়ালখালীতে আমনের বাম্পার ফলন, ঘরে তুলতে ব্যস্ত কৃষক

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৯ নভেম্বর, ২০২১
  • ১২৪ Time View

বাবর মুনাফ

চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে এবার আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। গত দু’দিন ধরে আকাশে মেঘ দেখা দেওয়ায় দম ফেলার ফুসরত নেই তাদের।  উপজেলার বিভিন্ন মাঠে গিয়ে দেখা গেছে, চাষীদের ধান কাটা এবং ঘরে তোলার দৃশ্য। তবে এখনো অনেক ক্ষেতের ধান পাকেনি। আগামী ১০/১৫ দিনের মধ্যে সব ধান উঠে যাবে বলে জানান কৃষকরা। এবার আমন মৌসুমে ধানের ফলন হয়েছে সেই রকম। আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে ধান ঘরে তুলতে সমস্যা হবে না বলেও জানিয়েছেন তারা।

আমুচিয়া এলাকার কৃষক নিপুল দাস জানান, এবছর তিনি নিজের ২ একর জমিতে আমন লাগিয়েছেন। প্রতি একর ধান চাষে তাঁর খরচ হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। ফলন ভালো হওয়ায় খরচ পুষিয়ে লাভ হবে বলে আশা করছেন তিনি। একই কথা জানিয়েছেন জ্যৈষ্ঠপুরা এলাকার কৃষক মো. শহীদ, মো. ইছহাক ও আহমদুর রহমান। তবে উত্তর সারোয়াতলী এলাকার কৃষক মো. ইউসুফ মিয়া বলেন, ধানের ফলন ভালো হলেও চাষে ট্রাক্টর, সার ও মজুরি খরচ বেশী বেড়ে গেছে। তাই চাষাবাদে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষকরা। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, বোয়ালখালীতে এবার আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৪ হাজার ৭ শত ৫০ হেক্টর জমিতে। এর মধ্যে ১ হাজার ১ শত ২১ হেক্টর জমিতে আগাম জাতের ব্রি ৩৯,৪৯,৮৭ ও স্থানীয় পাইজাম জাতের ধান লাগানো হয়েছে। কৃষকদের তৎপরতা, সঠিক পরিচর্যা ও উপ- সহকারি কৃষি কর্মকর্তাদের সঠিক পরামর্শে ফলন বৃদ্ধি হয়েছে বলে জানান উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. আতিক উল্লাহ। কৃষকদের মধ্যে আগাম ধান চাষের প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে খরচ কম, অল্প সময়ে লাভবান হওয়া যায়। অতি বৃষ্টির ফলে ফসলের কিছুটা ক্ষতি হলেও লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে জানান, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মেহেদী হাসান।

শেয়ার করুন-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 purbobangla