1. [email protected] : purbobangla :
সোমবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২২, ০২:১১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
বাংলাদেশ ফাইন্যান্স বাংলাদেশে ইসলামিক অর্থায়নের বিশাল সম্ভাবনার সু্যোগ কাজে লাগাতে পারে চিটাগাং ক্লাব লিঃ এমপ্লয়ীজ ইউনিয়নের নির্বাচন সম্পন্ন লায়ন দিলুয়ারা কামালের সৌজন্যে আনোয়ারায় সহস্রাধিক রোগী পেলো বিনামূল্যে চোখের চিকিৎসা সেবা ও ছানি অপারেশনের সুযোগ বাংলাদেশ ডিজিটাল সার্ভের পর আর কোনো জরিপের প্রয়োজন নেই – ভূমিমন্ত্রী একাদশ শ্রেণিতে ভর্তির আবেদন শেষ হচ্ছে আজ দক্ষিন হালিশহর ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে মুজিব বর্ষ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে কাশেম স্মৃতি,রার্নাস আপ-নয়ারহাট ক্রীড়া সংস্থা বঙ্গবন্ধু শিশু কিশোর মেলার সদরঘাট থানা কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত চট্টগ্রামে নতুন রূপে যাত্রা শুরু করলো ইমার্ট পারকীতে অবশেষে চেয়ারম্যানের আহ্বানে দু’পক্ষের সমজোতা কিন্তু নঈমের দোকান ভাংচুরের ক্ষতিপূরণ দেবে কে? আজ থেকেই গণপরিবহনে নতুন নিয়ম চালু

বকশীগঞ্জে সংস্কৃতি কর্মীদের অনুদান বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ ফেসুবকে ইউএনওকে তুলোধুনো!

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৬ অক্টোবর, ২০২১
  • ১০২ Time View

বকশীগঞ্জ(জামালপুর)প্রতিনিধি

বকশীগঞ্জে কোভিড-১৯ ভাইরাস সংক্রমণ জনিত সমস্যার কারণে অসচ্ছল সংস্কৃতিসেবীদের নামে ৫,০০০/- টাকা স্বচ্ছলদের নামে প্রদান করায় সমালোচনা মুখে পড়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মুন মুন জাহান লিজা। ৪ তারিখে বকশীগঞ্জে শিল্পকলা একাডেমীর সাথে জড়িত ৬জন শিল্পির নামে প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে বিতরণ করেন ইউএনও। পরে এসব অনুদান প্রদানের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করলে কঠোর সমালোচনা পড়েন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনমুন জাহান লিজা। অনুদান প্রাপ্তদের মাধ্যে অলো শম্বু চন্দ্র সাহা, সঞ্জিব কুমার দে, অলোকা সাহা, লিপি সাহা, সাজ্জাদ হোসেন খান, এ.কে এম উসমান গনি ও গোপাল চন্দ্র সাহা। অনুদান প্রাপ্তদের মাঝে অলোকা সাহা হচ্ছেন বকশীগঞ্জে সবচেয়ে বড় কাপড় ব্যবসায়ী ঝিলিক বস্ত্র বিতানের মালিক ঠান্ডু সাহার স্ত্রী। প্রতিদিন প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার উপরে এই দোকানে বেচাকেনা হয়। শব্মু সাহাও একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও তার এক ছেলে ইংল্যান্ড প্রবাসী। মাঝে মধ্যেই তার ছেলে পাপন সাহা সাধারন দরিদ্র মানুষদের আর্থিক সহযোগিতা করে থাকেন। লিপি সাহাও স্বচ্ছল । তার স্বামীর কাপড় ব্যবসায়ী লোকনাথ বস্ত্র বিতানের মালিক সুবাস সাহার স্ত্রী। স্বচ্ছলদের নামে অনুদান দেওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে সমালোচনা ঝড়। সালাম মাহামুদ নামে এক ফেসবুক ব্যবহারকারী লেখেন, সরকারি অনুদান সচ্ছলরাও হাত পেতে নেওয়ার অধিকার রাখে। ছাত্রলীগ নেতা রাজ রাজন লেখেন মাক্স খুলে দিলে সচ্ছল আর অসচ্ছল সহজেই ধরা পরতো ভাটি সাইফুল নামক ফেসবুক ব্যবহারকারী লেখেন উনারা যদি অস্বচ্ছল হয় তাহলে স্বচ্ছল কারা স্যার ? তৌহিদ জামান লেখেন. ছিঃ লজ্জা লাগছে না ? একজনের সন্তান থাকে বিদেশে তিনিও অস্বচ্ছল! এখানে একজন এই টাকার যোগ্য আর বাকি সবাই কি তা তদন্ত করে দেখা যেতে পারে । উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনমুন জাহান লিজা এ নিয়ে জানতে চাইলে তিনি মিটিংএ আছি বলেই লাইন কেটে দেন।

শেয়ার করুন-

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 purbobangla